• ঢাকা, বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৭:১৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাজশাহীতে সম্ভাবনাময় কর্মসংস্থানের খাত প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে চলার নামইতো সাংবাদিকতা জমকালো আয়োজনে রাজশাহী সংবাদের বর্ষপিূর্তি উদযাপন শেখ হাসিনার হাত ধরেই এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ: জাতীয় সংসদে প্রথম বক্তব্যে আসাদ শাহীন স্কুল রাজশাহী শাখার বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণ বিজয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার বার্ষিক বনভোজন ও পুরস্কার বিতরণ ট্যুর মুরল্যান্ডের একযুগ পূর্তি উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা ও র‌্যালি রাজশাহীর আওয়ামী লীগ কর্মী নয়লাল হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে মানববন্ধন রাজশাহী টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচন ২৪ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতা পিন্টু আর নেই

আম বাগান পরিচর্যায় ব্যস্ত পুঠিয়ার চাষিরা

রিপোর্টার নাম:
আপডেট সোমবার, ২ জানুয়ারী, ২০২৩

আম বাগান পরিচর্যায় ব্যস্ত পুঠিয়ার চাষিরা

আবু হাসাদ
রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার আম গাছে মুকুল আসতে এখনো কয়েক মাস দেরি। মাঘ শেষ হওয়া মাত্র ফাল্লুনের গরম বাতাসে প্রায় সকল আম গাছে মুকুল আসবে। কিন্তু এরই মাঝে শুরু হয়ে গেছে পুঠিয়ার আম চাষিদের আগাম আম বাগান পরিচর্যা।
মুকুল আসার আগ মুহূর্তে গাছের বাড়তি যত্নের প্রয়োজন হয়। তাই ছোট-বড় আম বাগান পরিচর্যায় চাষিরা বর্তমানে ব্যস্ত সময় পার করছেন। তারা বাগানের আগাছা পরিষ্কার করে সেচ, সার দিচ্ছেন। পোকা দমনে স্প্রে করছেন কীটনাশক। এতে পোকা যেমন দূর হবে, তেমনি গাছে দেখা দেবে স্বাস্থ্যকর মুকুল। এতে করে ফলন ভাল আসবে।
পুঠিয়ায় যে সকল আম উৎপাদন হয় তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল,ফজলি, লখনা, গোপালভোগ, আশ্বিনা, হিমসাগর, দুধসর, কালীভোগ, তোতাপরী, আম রুপালিসহ শতাধিক বেশি জাতের আম চাষ করা হয়ে থাকে। দিন দিন চাষিরা আম চাষে আরো আগ্রহী হয়ে উঠছেন। তারা সব সময় কৃষি অধিদপ্তরের পরামর্শ অনুযায়ী বাগানের পরিচর্চা করে থাকেন।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, পুঠিয়া উপজেলায় নতুন ও পুরাতন মিলে প্রায় সাড়ে ১০শ’ হেক্টোর জমিতে আম বাগান রয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় প্রায় ২২ হেক্টোর বেশী জমি।
ভালুকগাছির আম চাষি রফিকুল ইসলাম জানান, গাছের সাথে থাকা পরকাসাগুলো কেটে এবং গাছের গোড়ায় সার-ভিটামিন জাতীয় ওষুধ দিয়ে বাগানের গাছগুলো পরিচর্যা শুরু করেছি। সামনের দিকে যাচ্ছে গাছগুলোতে আমের ভালো মুকুল পাওয়া যায় সে আশায়। আর আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ভাল ফলন হবে।
এ ব্যপারে উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে চাষিরা অনেক বেশি সচেতন। তারা সবসময় আমাদের মাঠ পর্যায়ের যারা কাজ করে তাদের থেকে পরামর্শ নেন এবং সে পরামর্শ মোতাবেক গাছের পরিচর্যা করেন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে গতবছরের থেকে এবার ভালো আমের বাম্পার ফলন আশা করা যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

এই ক্যাটাগরিতে আরো নিউজ
%d