• ঢাকা, বাংলাদেশ বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৪০ অপরাহ্ন

নগরীর ৬৫ হাজার ২০৫ শিশু পাবে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল

রিপোর্টার নাম:
আপডেট বৃহস্পতিবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক

নগরীতে ৬ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী ৬৫ হাজার ২০৫ শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। আগামী ১২ ডিসেম্বর জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন-২০২৩ উপলক্ষে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনায় ওই পরিমাণ শিশুকে ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

বৃহস্পতিবার সকালে নগর ভবনের এ্যানেক্স সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। এ সময় নগরীতে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন কার্যক্রম বিষয়ক সার্বিক পরিস্থিতি উপস্থাপন করেন রাসিক-এর প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফএএম আঞ্জুমান আরা বেগম।

প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান, আসছে ১২ ডিসেম্বর জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইনে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী সব শিশুকে একটি নীল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী সব শিশুকে একটি লাল রঙের ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

নগরীতে জাতীয় ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন সুষ্ঠু ও সফলভাবে বাস্তবায়নে ৩৮৪টি কেন্দ্রে ৭৬৮ জন স্বেচ্ছাসেবি নিয়োজিত থাকবে। প্রতিটি কেন্দ্রে ২ জন করে স্বেচ্ছাসেবি কাজ করবেন। প্রতিটি কেন্দ্র সকাল ৮টা হতে বিকেল ৪টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ৮ হাজার ৯১০ টি এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী ৫৬ হাজার ২৯৫ টি শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইনের গুরুত্ব তুলে ধরা হয়। দেশ থেকে অপুষ্টিজনিত অন্ধত্ব নির্মূল এবং অপুষ্টিজনিত শিশু মৃত্যু প্রতিরোধ করার লক্ষে দেশব্যাপি জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন পালিত হবে। নগরীর ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন কার্যক্রম শতভাগ সফল করতে নগরবাসী সহ গণমাধ্যমকর্মীদের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে রাসিক’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাদিয়া আফরিন, ভ্যাটেরিনারি সার্জন ডা.ফরহাদ উদ্দিন, জনসংযোগ কর্মকর্তা মোস্তাফিজ মিশু, ফুড এন্ড স্যানিটেশন অফিসার শেখ আরিফুল হক, সহকারী জনসংযোগ কর্মকর্তা রকিবুল হক তুহিনসহ গণমাধ্যমকর্মীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, রাজশাহী সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কনফারেন্স রুমে অবহিতকরণ সভায় জানানো হয় রাজশাহী জেলার ৯টি উপজেলার ২ লাখ ৯১ হাজার ১৫৯ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন এ ক্যাপসুল।

সিভিল সার্জন ডা. আবু সাঈদ মোহাম্মদ ফারুক জানান, অপুষ্টিজনিত অন্ধত্ব দূর করতে এবং শিশু মৃত্যু প্রতিরোধে জেলা পর্যায়ে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। রাজশাহী জেলার মোট ১ হাজার ৭৫৪টি কেন্দ্রে ২ লাখ ৯১ হাজার ১৫৯টি শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। এর মধ্যে ৬ মাস থেকে ১১ মাস বয়সী ২৯ হাজার ৬২৯ জন শিশুকে নীলরঙের ক্যাপসুল (এক লাখ আইইউ) এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী ২ লাখ ৬১ হাজার ৫৩০ জন শিশুকে লালরঙের ক্যাপসুল (দুই লাখ আইইউ) খাওয়ানো হবে।

সিভিল সার্জন বলেন, ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাপসুল শিশুর বিকাশে সাহায্য করে। শিশুর অন্ধত্ব প্রতিরোধ করে এবং শিশু মৃত্যুর হারকে কমিয়ে আনে। তাই মায়েদের সচেতন হতে হবে যেন কোনো শিশু ক্যাপসুল খাওয়া থেকে বাদ না পড়ে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

এই ক্যাটাগরিতে আরো নিউজ
%d