• ঢাকা, বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ১২:৫৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
নোটিশ
রাজশাহীতে আমরাই প্রথম পূর্ণঙ্গ ই-পেপারে। ভিজিট করুন epaper.rajshahisangbad.com

বৃক্ষরোপণে আবারো প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার পেয়েছে রাসিক

রিপোর্টার নাম:
সর্বশেষ: সোমবার, ৫ জুন, ২০২৩

 

নিজস্ব প্রতিবেদক

সবুজায়ন, বৃক্ষরোপণ ও পরিবেশ উন্নয়নে দেশ-বিদেশে সুনাম ও খ্যাতি অর্জন করেছে রাজশাহী মহানগরী। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের মেয়াদকালে নগর উন্নয়নে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা ও সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণের কারণেই পরিচ্ছন্ন, স্বাস্থ্যকর, দৃষ্টিনন্দন, সবুজ, উন্নত ও বাসযোগ্য পরিবেশবান্ধব শহর পেয়েছে মহানগরবাসী। এরই স্বীকৃতি হিসেবে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) পেয়েছে বিভিন্ন পদক। সর্বশেষ বৃক্ষরোপণে বিশেষ অবদানে জন্য ‘বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার-২০২১’ ১ম স্থাপন অর্জন করেছে রাসিক। সোমবার (৫ জুন) বিশ^ পরিবেশ দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন পুরস্কারটি গ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে রাসিকের সচিব মোঃ মশিউর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

রাসিকের তথ্যমতে, পরিবেশ উন্নয়নে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। স্বাস্থ্যকর, সবুজ ও পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে ইতোমধ্যে রাজশাহী মহানগরী দেশের অন্যান্য শহরের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। নগরীর প্রধান সড়ক বিভাজক, সড়ক দ্বীপে এবং ফুটপাতে লাগানো হয়েছে সৌন্দর্য্যবর্ধক বিভিন্ন প্রজাতির গাছ। সবুজ হয়েছে প্রায় ৩৫ কি.মি. রাস্তার সড়ক বিভাজন ও চত্বর। মহানগরীর বারো রাস্তা মোড়, মোল্লাপাড়া গোল চত্বর, রাজিব চত্বর, ভদ্রা মোড়, তালাইমারি মোড় ও রানীবাজার ঢোপকল চত্বরসহ বিভিন্ন মোড় ও চত্বর পরিকল্পিতভাবে ফুলে ফুলে সাজানো হয়েছে। বাহারি ফুলের আকর্ষণীয় রঙে পথচারিদের দৃষ্টি কাড়ছে। নগরীর সবুজ রূপ ধরে রাখতে সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন রাসিকের পরিবেশ কর্মীরা।

রাসিকের পরিবেশ উন্নয়ন কর্মকর্তা সৈয়দ-মাহমুদ উল ইসলাম বলেন, রাজশাহী একটি সবুজ, পরিচ্ছন্ন, ফুলের শহর হিসেবে দেশে বিদেশে পরিচিত লাভ করেছে। এই শহরের রূপকার সদ্য সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। তাঁর নেতৃত্বে ও নির্দেশনার  রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন স্থানে সড়ক বিভাজক, ফুটপাত, সড়কদ্বীপ ও চত্বরসমূহে ২ লক্ষাধিক নানা প্রজাতির স্থায়ী বৃক্ষ এবং ১০ লক্ষাধিক সৌন্দর্যবর্ধক হেজ জাতীয় বৃক্ষরোপণ করা হয়। এছাড়াও শীত ও বসন্তকালে নগরীর সড়ক বিভাজকে বিভিন্ন প্রজাতির ফুলের চারা রোপণের মাধ্যমে সড়কগুলো ফুলে-ফুলে সুশোভিত করা হয়। শুধুমাত্র ২০২২-২০২৩ সালের শীত মৌসুমে ২ লাখ ৫৩ হাজার নানা প্রজাতির ফুলের চারা রোপণ করা হয়েছে। স্বীকৃতি হিসেবে বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার ২০০৯, ২০১২ ও ২০২১ অর্জন, জাতীয় পরিবেশ পদক ২০২১ ও ২০২২ এবং এনভায়রনমেন্ট ফ্রেন্ডলি সিটি অব দ্যা ইয়ার ২০১৬, বাতাসে ক্ষতিকারক ধূলিকণা কমানোয় ডঐঙ (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা) কর্তৃক বিশ্বের সেরা নগরী এবং এশিয়ার অন্যতম পরিচ্ছন্ন শহরের স্বীকৃতি অর্জন করেছে।

রাসিকের সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ‘বৃক্ষরোপণ, সবুজায়ন ও পরিবেশ উন্নয়নে সারাদেশে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে রাজশাহী নগরী। রাজশাহী পরিণত হয়েছে একটি পরিচ্ছন্ন, সবুজ, ফুলের নগরীতে। আমি আগামীতে আবারো সুযোগ পেলে আরো সুন্দর করে সাজানোর পরিকল্পনা রয়েছে। আগামীতে ব্যাপক বৃক্ষরোপণ ও পদ্মাতীর ঘেঁষে সবুজ বেস্টনি স্থাপন, নদীর চর ও অন্যান্য খাসজমিতে বনায়নের উদ্যোগ গ্রহণ, উষ্ণায়ন ও চরম আবহাওয়ায় জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ এবং নগরবাসীর জীবন যাত্রার অনুকূল পরিবেশ রক্ষার জন্য বিশেষজ্ঞগণের সুপারিশক্রমে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ এবং মিনি সাফারি পার্ক ও এভিয়ারি নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হবে। আগামীতে রাজশাহীর আরো উন্নত, আধুনিক ও বাসযোগ্য নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই।

 

 


আরো খবর