• ঢাকা, বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
রাজশাহীতে সম্ভাবনাময় কর্মসংস্থানের খাত প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে চলার নামইতো সাংবাদিকতা জমকালো আয়োজনে রাজশাহী সংবাদের বর্ষপিূর্তি উদযাপন শেখ হাসিনার হাত ধরেই এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ: জাতীয় সংসদে প্রথম বক্তব্যে আসাদ শাহীন স্কুল রাজশাহী শাখার বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণ বিজয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার বার্ষিক বনভোজন ও পুরস্কার বিতরণ ট্যুর মুরল্যান্ডের একযুগ পূর্তি উপলক্ষে আনন্দ শোভাযাত্রা ও র‌্যালি রাজশাহীর আওয়ামী লীগ কর্মী নয়লাল হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে মানববন্ধন রাজশাহী টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচন ২৪ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতা পিন্টু আর নেই

রাবির জিয়া হল ক্যান্টিনে খাবারের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদ শিক্ষার্থীদের

রিপোর্টার নাম:
আপডেট বুধবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২৩

রাবি প্রতিনিধি

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শহীদ জিয়াউর রহমান হলে খাবারের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে ক্যান্টিনে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে হলটির আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

বুধবার বেলা সাড়ে ১২টায় হলটির ভিতরে আন্দোলন করেন তারা। পরে হলের মেইন গেইটে এসে তারা অবস্থান কর্মসূচি পালন করে ।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে জানা যায় , এর আগেও কয়েকদফা হল প্রশাসনকে সাথে নিয়ে ক্যান্টিন মালিককে খাবারের দাম কমানোর দাবি জানান হলের শিক্ষার্থীরা। তবে শিক্ষার্থীদের কথায় কর্ণপাত না করে খাবারের দাম বেশি নিয়েই ক্যান্টিন চালাচ্ছিলেন ক্যান্টিন মালিক। খাবারের দাম বেশি নিলেও খাবারের মান যথেষ্ট খারাপ বলে জানান শিক্ষার্থীরা। খাবারের মান ভালো করার কথা জানান ক্যান্টিন মালিক। তবে খাবারের মান বৃদ্ধিতে কোনো নজর দেইনি। ফলে জিয়া হলে শিক্ষার্থীরা সকাল ১০টায় হলের টিভি রুমে খাবারের দাম বৃদ্ধির বিষয় নিয়ে আলোচনায় বসেন। পরে খাবারের দাম না কমানো পর্যন্ত তারা ক্যান্টিনে তালা মেরে আন্দোলন করবেন বলে সিদ্ধান্ত নেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ক্যান্টিন মালিক জিয়াউর রহমান হলের দায়িত্বপ্রাপ্ত ছাত্রলীগের একাধিক নেতাকর্মীকে বিনা টাকায় খাওয়ান। তাদের মদদেই তিনি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে খাবারের দাম বেশি রাখেন বলে হলের একাধিক শিক্ষার্থী বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এ বিষয়ে জিয়াউর রহমান হলের আবাসিক শিক্ষার্থী বাপ্পি বলেন, আমরা কয়েকবার ক্যান্টিনে খাবারের দাম কমানোর কথা  মালিককে অবহিত করেছি। তিনি খাবারের দামও বেশি নেন আবার খাবারের মানও খুব খারাপ। ফলে আমরা সকলে মিলে সিদ্ধান্ত নিয়েছি দাম না কমানো পর্যন্ত অবস্থান করবো।

জিয়াউর রহমান হলের আরেক শিক্ষার্থী বলেন, আমরা ক্যান্টিন মালিককে একাধিকবার বুঝিয়েছি কিন্তু তিনি আমাদের কথা শুনেনি। আমরা এটাও বলেছি যে অন্য ক্যান্টিন নির্দিষ্ট দামে পারলে আপনি পারবে না কেন? কিন্তু  তিনি আমাদের কাছ থেকে দাম বেশি করেই রাখেন। ফলে আমরা এখানে দাঁড়িয়েছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শহীদ জিয়াউর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ ড. সুজন সেন বলেন, আমি বিষয়টি শুনেছি। আমি রাজশাহী মেডিকেল থেকে হলে যাচ্ছি। শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে বিষয়টি শুনে দ্রুত সমাধান করবেন বলে জানান তিনি।

 

 

 

 

 

 

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

এই ক্যাটাগরিতে আরো নিউজ
%d