• ঢাকা, বাংলাদেশ বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০১:২০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
কানে খোলামেলা পোশাক, ভাবনাকে ধুয়ে দিলেন অঞ্জনা পবায় ডাবলু ও মোহনপুরে বকুল বিজয়ী, দুই উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান হলেন যারা মোহনপুরে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সেই হাবিবার বাজিমাত রাজশাহীতে অটোরিকশাকে ট্রেনের ধাক্কা, নিহত ২ নগরীতে দুই অপহরণকারী গ্রেপ্তার, অপহৃত উদ্ধার রাসিক ইমপ্লয়মেন্ট স্কিল ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউটে প্রশিক্ষণ নিয়ে পেইড ইন্টার্নশিপের সুযোগ পেলেন ৯০ জন নিয়ামতপুরে দুর্নীতিবিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত গোমস্তাপুরে জাতীয় শিক্ষা  সপ্তাহের পুরস্কার বিতরণী রহনপুরে  কৃতি শিক্ষার্থী  সম্বর্ধনা  বাঘায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সংঘাত ও সহিংসতা পরিহারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন
নোটিশ
রাজশাহীতে আমরাই প্রথম পূর্ণঙ্গ ই-পেপারে। ভিজিট করুন epaper.rajshahisangbad.com

রুয়েটের সেই কর্মকর্তা সাময়িক বরখাস্ত

রিপোর্টার নাম:
সর্বশেষ: বুধবার, ৩০ আগস্ট, ২০২৩

রাবি প্রতিনিধি

১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জানাজা সঙ্গে জামায়াত নেতা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর জানাজার উপস্থিতির তুলনা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছবি পোস্ট করায় রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (রুয়েট) এক কর্মকর্তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। ওই কর্মকর্তার নাম মিলনুর রশিদ। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় যন্ত্রকৌশল বিভাগের সিনিয়র টেকনিক্যাল অফিসার পদে কর্মরত ছিলেন।

মঙ্গলবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. মো. সেলিম হোসাইন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জাতির পিতাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্পর্শকাতর বিষয় শেয়ার করায় উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে এবং তদন্ত কমিটির তদন্তের স্বার্থে আপনাকে অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকুরী হতে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো। বরখাস্তকালীন সময়ে আপনি খোরপোষ ভাতাসহ প্রাপ্য ভাতাদি পাবেন। উল্লেখ্য যে, বরখাস্তকালীন সময়ে আপনি বিধি মোতাবেক আপনার বিভাগীয় প্রধানের নিকট রিপোর্ট প্রদান করবেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, জাতির পিতাকে নিয়ে এভাবে পোস্ট করে ওই কর্মকর্তা অনেক বড় অন্যায় কাজ করেছে। এ নিয়ে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত চলাকালীন সময়ের জন্য তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। তদন্ত শেষে প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ব্যবস্থা নিবে বলে জানান উপাচার্য।

এর আগে, বিষয়টি রুয়েট প্রশাসনের আমলে আসলে তা খতিয়ে দেখতে যন্ত্রকৌশল বিভাগের প্রফেসর ড. নীরেন্দ্র নাথ মুস্তফীকে সভাপতি করে তিন সদস্যবিশিষ্ট এই তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটির অন্য দুই সদস্য হচ্ছেন শহীদ শহীদুল ইসলাম হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. মো. আলী হোসেন এবং গবেষণা ও সম্প্রসারণ দপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মুফতি মাহমুদ রনি।

আগামী তিন কার্য কার্যদিবসের মধ্যে এই কমিটিকে তদন্তকার্য সম্পন্ন করে সুপারিশসহ মতামত প্রদানের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।


আরো খবর